মজা করার গল্প

ফেসবুক ব্রাউজ করছিলাম রাত প্রায় ২ টা বাজে।এমন সময় একজন মেসেজে নক করল...
-এই আপনার একটা পিক দেন তো। (বার্তা প্রেরক)
আমি প্রথমে বুঝার চেস্টা করলাম তাকে আমি চিনি কিনা আগে কখনো কথা হয়েছে কিনা।কিন্তু কিছু পেলাম না প্রথম নক করছে আমাকে।
তো আমি তাকে উত্তরে বললাম,
-কেন আপু?
আবারও একই কথা,
-আপনার পিক দেন।
-পিক কেন আপু! কোন দরকার?
-ওই তোরে পিক দিতে কইছি পিক দিবি। আর এত আপু আপু করছ কেন?আমি তোর কোন জন্মের আপু হই।
এইবার রিপ্লাই দেইখাতো আমি পুরা ঠান্ডা। ফেসবুক চালানো শুরু করার পর থেইকা এখন পর্যন্ত কতজনে পিক চাইছে। কিন্তু সবাইতো কতো মিষ্টি করে কথা বলে চাইত। আর উনিতো রিতিমত হুমকি দিয়া চাইতেছে।
আমি কি রিপ্লাই দিব ভাবতে ভাবতে আবার প্রশ্ন করল,
-ঐ রিপ্লাই দেস না কেন?
আমি তাড়াহুড়ো করে রিপ্লাই দিলাম,
-আসলে আপু আমার মোবাইলেতো আমার কোন পিক নাই।
এবার রাগী ইমোজি সহ মেসেজ করল,
-আমারে তুই বাচ্চা পাইছোস। তোর মোবাইলে তোর পিক নাই।এখনই পিক দে।😈
এবার আমি আরো ব্যাচকাই গেলাম।তার মেসেজের রিপ্লাই দেয়ার কোন সাহস পাইতেছি না।আবার আমি মেসেজের রিপ্লাই না দিয়াও পারি না।তারউপর মেয়ে আইডি, ফেক হলেও দুর্বলতা থাকেই মনের ভিতর ঘুরতে থাকে যদি রিয়েল আইডি হয় তখন সাহসটা এমনিতেই বেড়ে যায়।
সাহস করেই রিপ্লাই দিলাম,
-আসলে আপু আমি খুব একটা ছবি তুলি না আর আমার মোবাইলের ক্যামেরা ভালো না তো তাই এই মোবাইল দিয়ে কোন ছবি তোলা হয় নি আর কোন ছবি নেইও। দিব কি করে!
রিপ্লাই পাইলাম,
-ওহ্ আচ্ছা।আর আমাকে আপু বলে ডাকবি না।
আমিও সাথে সাথেই রিপ্লাই দিলাম,
-জ্বী আচ্ছা।
-এখন গল্প লিখেন না কেন? আপনার গল্প পাই না এখন।
ভাবলাম মনে হয় কিছুটা শান্ত হইছে। আমার গল্প পইড়া আমার প্রতি ইন্টারেস্টেড হইছে বুঝলাম।ভাব নিয়া রিপ্লাই দিলাম,
-আসলে এখন ব্যাস্ত থাকি! আর আপাতত একজন ভালো পাঠক হতে চেস্টা করছি তাই গল্প লিখা হচ্ছে না।
রিপ্লাই পেলাম,
-ওহ্ আচ্ছা।
আমিও রিপ্লাই দিলাম,
-জ্বী।
উনি আবার রিপ্লাই দিলেন,
-আপনি আমার ফ্রেন্ড রিকুয়েস্ট এক্সেপ্ট করেন নাই কেন? চার-পাঁচটা গল্প লিখছেন দেইখা কি ভাব বাইড়া গেছে।😈
আবার পড়লাম প্যাচালে।মাইয়া রাইগা আছে নাকি শান্ত আছে বুঝতে পারতেছি না।কবে ফ্রেন্ড রিকুয়েস্ট পাঠাইছলো আর কিজন্য এক্সেপ্ট করি নাই সেটা কি এখন মনে আছে।আর আমি সাধারনত রিকুয়েস্ট এক্সেপ্ট করি যারা লেখক অথবা প্রোফাইল দেখে বুঝতে পারি গল্পের প্রতি ইন্টারেস্ট আছে তাদের।আমি নিজেই তাদের রিকুয়েস্ট দেই। তার প্রোফাইলে ভিজিট করতে ডুকলাম।
প্রোফাইলে ডুকার পর দেখি মেয়েতো নিজেই লেখক।আর সাথে গল্পের গ্রুপগুলোর সাথেও যুক্ত মানে গল্প লিখেও আবার পড়েও।দুটোই হতে পারে।
ইতি মধ্যে আবার মেসেজ দিল,
-রিপ্লাই দিচ্ছেন না কেন?
বুদ্ধি করে রিপ্লাই দিলাম,
-জ্বী মানে রিকুয়েস্ট এক্সেপ্ট করতে গিয়ে ভুলক্রমে ডিলেটে টাচ হয়ে গিয়েছিলেতো তাই।
উনি এবার রিপ্লাই দিলেন,
-তাহলে তুই আবার ফ্রেন্ড রিকুয়েস্ট পাঠাইলি না কেন? নাকি ফ্রেন্ড রিকুয়েস্ট পাঠাইলে তোর ভাব কইমা যাইত।
😈😈😈
এবার কি বলব।মেয়েতো দেখি আবার রাইগা গেছে।এর উত্তর কি দিমু।মাইয়াতো রিতিমত ইনসাল্ট করতাছে আমারে।
আমি রিপ্লাই কি দিব ভাবতে ভাবতে উনি আবার মেসেজ দিল,
-ঐ ঘুমাইয়া গেসছ নাকি।কথা বলস না কেন?
মেসেজ দেইখা বুদ্ধি করে বললাম,
-জ্বী, আসলে খুব ঘুম পাচ্ছে। আপনার সাথে কাল কথা হবে।
বলেই ডাটা কানেকশন অফ করে ঘুমাইতে গেলাম।সকালে ঘুম ভাঙার পর মোবাইল হাতে নিয়া ফেসবুকে ডুকার পর মনে হল গতকাল রাতের কথা। ভাবলাম গিয়ে দেখি পরে আর কোন মেসেজ দিছে কিনা।
মেসেঞ্জারে গিয়া তো চোখ উল্টাই গেলো,
দেখি একটার পর একটা মেসেজ আসতেছে আর টুংটাং আওয়াজ হইতাছে।মেসেজগুলা পড়তে পড়তে আমার বারটা বেজে গেছে, এতগুলা মেসেজ পাঠাইছে আর সবগুলাতে হুমকি আর রাগের ইমোজি ছাড়া অন্য কিছু নাই।
লাস্ট মেসেজ দেইখা খেয়াল হইলো মেসেজ বক্সের নিচে লিখা,
You can't reply this conversation....!
লাস্ট মেসেজটা ছিল,
-ঐ তুই অনলাইনে থাইকা মেসেজ রিপ্লাই দেস না কেন।আমার সাথে ভাব নেস তোর ভাব আমি বাইর করতেছি।
😈😈😈😈😈😈
বুঝলাম আমাকে ব্লক দিয়ে আমার ভাব বাইর করছে।যাক আমার ভাবটা একটু বেশী। গল্প লিখার পর থেকে অনেকেই আমাকে ব্লক করছে অথবা আনফ্রেন্ড করছে।আর এর কারন হলো আমি হয়তো ব্যস্ত থাকার কারনে মেসেজ রিপ্লাই দিতে দেরী করতাম না হলে এমন এমন প্রশ্ন করতো যার উত্তর বলার মত কিছু পেতাম না তাই চুপ করে থাকতাম কিছু সময় পর দেখি আমার অবস্থান তার ব্লক জগতে।
আর আমার মোবাইলে একটা সমস্যা হলো ডাটা অফ করার পরও কিছু সময় আমার আইডি এক্টিভ দেখায়।অপেরা বা লাইট ফেসবুক থেকে যদি মেসেজ পাঠায় বুঝতে পারবে না।মেয়ে মনে হয় এই দুটোর কোনো একটি থেকেই চ্যাট করছে।তাই বুঝতে পারে নি যে আমি অফলাইনে চলে গেছি।
কিন্তু সমস্যা হলো আজকে সকালে ঘুম থেকে ফেসবুকে ডুকার পর দেখলাম।ঐ আইডি থেকে "শুভ সকাল" লিখা মেসেজ আসছে।মানে আমারে আনব্লক করছে।এটা দেখে আমার যতটা না খুশি হওয়ার কথা তার থেকে বেশী ভয় পাইতাছি।মেসেজের উত্তর দেওয়ার পর আবার কি না কি বলে আল্লাহ্ই জানেন।
রিপ্লাই দিচ্ছি না, টেনশন হচ্ছে কখন আবার রাগী ইমোজি সহ হুমকি দেওয়া শুরু করে...!
(বাস্তবিক বা কাল্পিনক ভাবেও যদি কারো সাথে মিলে যায় কিছু করার নাই)
রিয়াদ আলম

0 Comments Here
Authentication required

You must log in to post a comment.

Log in
Related Post
প্রতিশোধ
প্রতিশোধ

ঘুম ভাঙতেই রজত টের পেল ট্রেনটা স্টেশনে থেমেছে। বাইরে হকারদের চিঙ্কার, ব্যস্ত লোকজনের মালপত্র নিয়ে এদিক..


ভালোবাসার মিস্টি..
ভালোবাসার মিস্টি গল্প

-- ইয়াক এটা কি পরেছিস? শয়তানের মত দেখাচ্ছে একদম
-- মানে? কি সমস্যা? ঠিকি তো..


StorialTechঅবনির চোখে জল
অবনির চোখে জল

দুঃখ আর হতাশা একটা ছেলের জন্য যতটুকু সহনীয় মেয়েদের জন্য নাকি তা আরও বেশি সহনীয়।কিন্তু,এই কষ্ট..